ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিব ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’
  • বৃহস্পতিবার   ০৯ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২৫ ১৪২৬

  • || ১৫ শা'বান ১৪৪১

৮৪

১ শতাংশ সুদে ২ হাজার কোটি টাকা চায় অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ

দৈনিক নেত্রকোনা

প্রকাশিত: ৯ জানুয়ারি ২০২০  

নেত্রকোনা ও বগুড়ায় অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনে সরকারের কাছে এক শতাংশ সুদে দুই হাজার কোটি টাকা ঋণ চায় অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)। এর মধ্যে দেড় হাজার কোটি টাকা চাওয়া হয়েছে নেত্রকোনা অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য।

আর ৫০০ কোটি টাকা বগুড়ার অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য। সম্প্রতি বেজা থেকে এ সংক্রান্ত পৃথক দুটি প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনাপত্তির জন্য। এদিকে এক শতাংশ সুদ কার্যকর করতে অর্থ মন্ত্রণালয় প্রক্রিয়া শুরু করেছে।

সূত্র জানায়, নেত্রকোনা অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের প্রস্তাবটি অনুমোদনের জন্য সারসংক্ষেপ পাঠানো হয়েছে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের কাছে। অপর প্রস্তাবটি অনুমোদন দেয়ার প্রক্রিয়ায় আছে।

জানতে চাইলে বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেন, বিদেশি দাতা সংস্থা এডিবি, বিশ্বব্যাংকসহ অন্যান্য সংস্থার কাছ থেকে এক শতাংশের নিচে সুদে ঋণ পাচ্ছি। অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণ করা হবে মূলত বিনিয়োগ ও শিল্পায়ন এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য। এক্ষেত্রে ১ শতাংশ সুদে ঋণ চাওয়া হয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে সুদবিহীন ও অনুদানের টাকায় এসব করা হয়। কারণ এটি কোনো বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে করা হয় না। অনগ্রসর এলাকায় শিল্পায়ন করা হচ্ছে। এটি সামাজিক দায়বদ্ধ থেকে করা হচ্ছে।

সূত্র আরও জানায়, এক শতাংশ সুদে ১৫শ’ কোটি টাকা ঋণ অনুমোদনের জন্য অর্থ বিভাগ থেকে সারসংক্ষেপ পাঠানো হয়েছে অর্থমন্ত্রীর কাছে। সেখানে বলা হয়েছে, শিল্পায়নের গতি আনতে দেশের বিভিন্ন স্থানে ১শ’ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।

এর মধ্যে নেত্রকোনায় অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের উদ্যোগ রয়েছে। অর্থনৈতিক অঞ্চলটি চলতি বছরের জুলাই থেকে শুরু করে ২০২২ সালের জুনের মধ্যে শেষ করা হবে। এ প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৫০৪ কোটি টাকা।

সম্পূর্ণ সরকারের অর্থায়নে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। সেখানে আরও বলা হয়, বাস্তবায়নকারী সংস্থা বেজা একটি নতুন প্রতিষ্ঠান। ফলে অধিক হারের সুদে ঋণ নিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন করে তা পরিশোধের সামর্থ্য বেজার নেই। ফলে এক শতাংশ সুদে ঋণ অনুমোদনের জন্য অর্থ বিভাগের অনাপত্তির সুপারিশ করা হল।

সারসংক্ষেপে আরও বলা হয়, ইতঃপূর্বে মিরসরাইয়ে ভারতের জন্য অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের জন্য ভূমি অধিগ্রহণসহ জামালপুর অর্থনৈতিক অঞ্চল, নাফ ও সাবরাং ট্যুরিজম স্থাপনের জন্য প্রকল্পে বার্ষিক এক শতাংশ সুদে ঋণ নেয়ার জন্য অর্থ বিভাগ অনুমোদন দিয়েছে বেজাকে। ওই ধারাবাহিকতায় নেত্রকোনা অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনে এক শতাংশ সুদে ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে অনাপত্তি দেয়া যেতে পারে।

সূত্রমতে, এক শতাংশ সুদে ঋণ নেয়ার জন্য অর্থ বিভাগ কয়েকটি শর্ত দিয়েছে বেজাকে। শর্তগুলো হল- বরাদ্দকৃত ঋণের অর্থ বেজার অনুকূলে সুদযুক্ত সরকারি ঋণ হিসেবে গণ্য হবে। ঋণ নেয়ার আগে অবশ্য অর্থ বিভাগের অনুমোদন লাগবে।

এ সংক্রান্ত একটি চুক্তি স্বাক্ষর হবে। ঋণ পাঁচ বছর গ্রেস পিরিয়ডসহ পরিশোধের সময় হবে ২০ বছর। গ্রেস পিরিয়ডের সময় মূলধন বা সুদ পরিশোধ করতে হবে না। অনুমোদিত ঋণ বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির আওতায় বর্ণিত প্রকল্পের বিপরীতে বিতরণ করতে হবে।

বগুড়া অর্থনৈতিক অঞ্চল: অপর প্রস্তাবে বেজা বগুড়ায় অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের জন্য ১ শতাংশ সুদে ৫২৪ কোটি টাকা ঋণ চেয়েছে। সম্প্রতি প্রস্তাবটি অর্থ বিভাগে পাঠানো হয়েছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে চলতি বছরের ১ জুলাই মাসে।

২০২৩ সালের ৩০ জুন মাসে কাজ শেষ হবে। তবে বেজা একটি নতুন প্রতিষ্ঠান। অধিক সুদে ঋণ নিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়নের সামর্থ্য বেজার নেই। এজন্য এক শতাংশ সুদে ঋণ অনুমোদনের জন্য অর্থ বিভাগের অনাপত্তির সুপারিশ করা হল।

বগুড়ার শাহজাহানপুরে ২৫০ একর জায়গার ওপর নতুন অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রাথমিকভাবে শাজাহানপুর উপজেলায় বগুড়া-নাটোর মহাসড়কের পাশে চকজোড়া, জোড়া, পারতেখুর, বীরগাঁও ও চকভালি মৌজায় ২৫১ একর জমিতে অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হবে।

এর মধ্যে জোড়া মৌজায় ১০৬.৬৩ একর, চকজোড়া মৌজায় ২.৯১ একর, পারতেখুর মৌজায় ১১৮.১১ একর, বীরগাঁও মৌজায় ১৫.২৪ একর এবং চকভালি মৌজায় ৮.১১ একর জমি রয়েছে। কৃষিভিত্তিক এই অঞ্চলে বহুমুখী শিল্প স্থাপনের মাধ্যমে অর্থনীতিকে গতিশীল করতে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেয়া হয়।

দৈনিক নেত্রকোনা
দৈনিক নেত্রকোনা