ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিব ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’
  • রোববার   ০৭ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৩ ১৪২৭

  • || ১৫ শাওয়াল ১৪৪১

দৈনিক নেত্রকোনা
৬০

সৌদি আরব থেকে ফিরেছেন আরও ১০৫ বাংলাদেশি

দৈনিক নেত্রকোনা

প্রকাশিত: ৯ অক্টোবর ২০১৯  

সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরেছেন আরও ১০৫ বাংলাদেশি কর্মী।  গতকাল মঙ্গলবার রাত ১১টা ২০ মিনিটে সৌদি এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে করে ৪২ জন এবং আজ বুধবার দিবাগত রাত সোয়া একটার দিকে আরও ৬৩ জন দেশে ফেরেন। 

ফেরত আসা কর্মীদের বিমানবন্দরেরর প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের সহযোগিতা দিয়েছে ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম। সেখানে তাদের খাবার-পানিসহ নিরাপদে বাড়ি পৌঁছানোর জন্য জরুরি সহায়তা প্রদান করা হয়। এ নিয়ে সৌদি আরব থেকে ধরপাকড়ের মুখে চলতি মাসেই দেশে ফিরেছেন ৪৪১ জন কর্মী। 

ফেরত আসা কর্মীদের মধ্যে মহিউদ্দিন নামে মুন্সিগঞ্জের একজন জানান, দশ বছর ধরে সৌদি আরবে ছিলেন। আকামাসহ বৈধভাবেই ছিলেন। দুদিন আগে এশার নামাজ পড়তে মসজিদে যাবার জন্য রুম থেকে বের হলে সৌদি ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করেন। তিনি আকামা দেখালেও তাকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায় তারা। আটকের কারণ জানতে চাইলে তাকে মারধর করা হয়।

মহিউদ্দিনের মতো সৌদি থেকে ফিরেছেন পিরোজপুরের শামীম। তিনি দাবি করেন, মাত্র দেড় মাস আগে সাড়ে তিন লাখ টাকা দিয়ে তিনি সৌদি আরব গিয়েছিলেন। কিন্তু আকামা থাকা সত্ত্বেও তাকে দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

ব্র্যাক অভিবাসন কর্মসূচির প্রধান শরিফুল হাসান সংবাদ মাধ্যমকে জানান, চলতি মাসেই দেশে ফিরলেন ৪৪১ কর্মী। এই বছর ১০ থেকে ১১ হাজার কর্মী সৌদি আরব থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। সাধারণ ফ্রি ভিসার নামে গিয়ে এক নিয়োগকর্তার বদলে আরেক জায়গায় কাজ করলে কর্মীদের ফেরত পাঠানো হতো। কিন্তু এবার ফেরত আসা কর্মীদের অনেকেই বলছেন, তাদের বৈধ আকামা ছিল। আসলেই এমনটা হয়েছে কী না সেটা দূতাবাস ও মন্ত্রণালয় খতিয়ে দেখতে পারে।

জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর