ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিব ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’

শুক্রবার   ১৫ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ১ ১৪২৬   ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

৭৫৭

সাবেক কারা মহাপরিদর্শক ইফতেখারকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৫ আগস্ট ২০১৯  

কারাগারের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে সাবেক কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।
রোববার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে সকাল ১০টা থেকে সংস্থাটির পরিচালক মুহাম্মদ ইউছুফের নেতৃত্বে একটি টিম তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন। টিমের অপর সদস্য হলেন সহকারী পরিচালক সালাহউদ্দিন আহমেদ। জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়টি দুদকের জনসংযোগ দফতর নিশ্চিত করেছে।

সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন পরবর্তী সময়ে মেজর জেনারেল হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে বর্তমানে অবসরকালীন ছুটিতে (পিআরএল) আছেন। মূলত চট্টগ্রাম কারাগারে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করতেই তার বক্তব্য নেয়া হচ্ছে বলে জানায় দুদক।

একই ঘটনায় এর আগে গত ৪ আগস্ট দ্বিতীয় দফায় চট্টগ্রাম কারাগারের সাবেক ও বরিশালের সিনিয়র জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বণিককে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক।
এর আগে বাসা থেকে ৮০ লাখ টাকা উদ্ধার হওয়ার ঘটনায় সিলেটের ডিআইজি-প্রিজন পার্থ গোপাল বণিকের বিরুদ্ধে গত ২৯ জুলাই মামলা দায়ের করে দুদক। মামলায় তার বিরুদ্ধে সরকারি চাকরিতে কর্মরত থেকে অর্পিত ক্ষমতার অপব্যবহার করে ঘুষ গ্রহণ করেছেন। মামলার এজাহারে তার বিরুদ্ধে দণ্ডবিধি ১৬১, দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারা ও মানিলন্ডারিং আইনে অভিযোগ আনা হয়েছে।

গত ২৮ জুলাই বিকেলে ধানমন্ডির ভূতের গলিতে পার্থ গোপাল বণিকের নিজ ফ্লাট থেকে থেকে ৮০ লাখ টাকা উদ্ধার করে দুদক। এরপরই গ্রেফতার করা হয় তাকে। ওই সময় পার্থ দাবি করেন, ৮০ লাখ টাকা তার বৈধ আয় থেকে অর্জিত। এরমধ্যে ৩০ লাখ টাকা শাশুড়ি দিয়েছেন, বাকি ৫০ লাখ টাকা সারা জীবনের জমানো টাকা।

ডিআইজি প্রিজন পার্থ কুমার বণিক ২০১৬ সালের ৮ আগস্ট চট্টগ্রামের ডিআইজি হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন।

২০১৮ সালের গত ২৬ অক্টোবর নগদ ৪৪ লাখ ৩৩ হাজার টাকা ও প্রায় পাঁচ কোটি টাকার নথিপত্রসহ ভৈরব রেলওয়ে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন চট্টগ্রামের জেলার সোহেল রানা বিশ্বাস। গ্রেফতারের পরপরই পুলিশের কাছে জেলার সোহেল রানা দাবি করেন, উদ্ধার করা টাকার মধ্যে ৫ লাখ টাকা তার এবং বাকি ৩৯ লাখ টাকা কারা বিভাগের চট্টগ্রাম বিভাগের ডিআইজি পার্থ কুমার বণিক ও চট্টগ্রাম কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বণিকের।

দৈনিক নেত্রকোনা
দৈনিক নেত্রকোনা
এই বিভাগের আরো খবর