ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিব ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’

শুক্রবার   ১৭ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৪ ১৪২৬   ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

২৩

তাশকিল বয়ানে চলছে ইজতেমার দ্বিতীয় দিন

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১ জানুয়ারি ২০২০  

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় দিন আজ। ইবাদত, তাশকিলে তামিল, ধর্মীয় আলোচনা, তসবি তাহলিল আর তাবলীগের বিভিন্ন বিষয়ের উপর বয়ানের মধ্য চলছে দিনটি। 

দ্বিতীয় দিনেও ফজরের নামাজের পর থেকে বয়ান শুরু হয়েছে। আগামীকাল আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে যানবাহন চলাচলে নিয়ন্ত্রণসহ নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা। সকালে ফজরের নামাজের পর আগত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে বয়ান করেন ভারতের মাওলানা আব্দুর রহমান। 

বিগত বছরগুলোর চেয়ে এবারের ইজতেমায় বেশি সংখ্যক মুসল্লি অংশগ্রহণ করায় মূল ইজতেমা ময়দান ছাড়িয়ে সড়ক, সড়ক দ্বীপ এবং ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নিয়েছেন অনেক মুসল্লি। প্রচন্ড শীত ও কনকনে হিমেল হাওয়া উপেক্ষা করে ধর্মীয় বয়ান শুনছেন তারা।

সকাল থেকে ইবাদত-বন্দেগি, খিত্তাভিত্তিক তাসকিলে তামিল, ইস্তেকবাল জামাত, নুরেওয়ালি জামাত, গঠন এবং চিল্লাবন্দি হয়ে দেশ বিদেশে দ্বীনের দাওয়াত ছড়িয়ে দেয়াসহ তাবলিগের বিভিন্ন বিষয়ের উপর বয়ান শোনার মধ্য দিয়ে ইজতেমার দ্বিতীয় দিন অতিবাহিত হচ্ছে। দ্বিতীয় দিনে শুধুমাত্র তাবলিগ কর্মকাণ্ডের উপর আলোচনাকে গুরুত্ব দেয়া হয়। অর্ধ-শতাধিক দেশের দুই হাজার বিদেশি মেহমান ইজতেমা ময়দানে উপস্থিত হয়েছেন। 

আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে আগামীকাল ভোর থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের এয়ারপোর্ট ধেকে জয়দবেপুর চৌরাস্তা, ঢাকা-সিলেট সড়কের গাজীপুর সদরের মীরের বাজার থেকে টঙ্গী ও আব্দুল্লাহপুর-আশুলিয়া সড়কের আব্দুল্লাহপুর থেকে বাইপাস সড়ক পর্যন্ত সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকবে। মোনাজাত শেষ না হওয়া পর্যন্ত এসব সড়ক বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে পুলিশ। 

এ উপলক্ষে বিশেষ ট্রেন সার্ভিসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া সব আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ট্রেন টঙ্গীতে যাত্রাবিরতি করবে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে।

ইজতেমা আয়োজকদের সূত্রে জানা গেছে, শনিবার বাদ জোহর মাওলানা ইসমাইল, বাদ আসর ভারতীয় মাওলানা জুহাইরুল হাসান এবং বাদ মাগরিব মাওলানা দেওলা বয়ান করবেন।

সার্বিক নিরাপত্তায় সাড়ে আট হাজার পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব ও অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করছে। তবে মুসল্লিদের সমাগম বেশি হওয়ায় বাইরে অবস্থানরত হাজার হাজার মুসল্লি ভোগান্তিতে পড়েছেন। ওজু, গোসলসহ দৈনন্দিন কাজে তাদের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আগত সহস্রাধিক বিদেশিদের সার্বিক সহযোগীতা প্রদানে কাজ করছে সিটি কর্পোরেশন। তাদের আরামদায়ক অবস্থান ও চাহিদা অনুযায়ী মেহমানদারি করা হচ্ছে। বিদেশি মুসল্লিদের কোনো ধরনের সমস্যা যেন না হয় সে জন্য সব সময় ইজতেমার মুরুব্বিদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।

দৈনিক নেত্রকোনা
দৈনিক নেত্রকোনা